Lead Banner

তুরস্ক প্রস্তুত মানবিজের নিয়ন্ত্রণ নিতে: এরদোয়ান

6

আন্তর্জাতিক ডেস্ক: সিরিয়া সীমান্তে আলোচিত মানবিজ শহরের নিয়ন্ত্রণ নিতে তুরস্ক প্রস্তুত বলে জানিয়েছেন দেশটির প্রেসিডেন্ট রজব তৈয়ব এরদোয়ান। রোববার মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের সঙ্গে টেলিফোনে আলাপকালে এরদোয়ান এ কথা জানিয়েছেন।

তুর্কি প্রেসিডেন্টের পক্ষ দেওয়া এক বিবৃতিতে বিষয়টি জানানো হয়েছে বলে জানিয়েছে বার্তা সংস্থা রয়টার্স।

গত সপ্তাহে এই মানবিজ শহরেই এক আত্মঘাতি হামলায় চার মার্কিন সেনা নিহত হয়। সিরিয়ায় যে আইএসবিরোধী অভিযানে অংশ নিতে মার্কিন সেনারা সেখানে অবস্থান করছে সেই আইএস বিদ্রোহীরাই হামলার দায় স্বীকার করেছে।

অথচ গত ১৯ ডিসেম্বর সিরিয়ায় আইএস পরাজিত হয়েছে এমন দাবি করে দেশটিতে থাকা দুই হাজার মার্কিন সেনা প্রত্যাহারের ঘোষণা দেন ট্রাম্প। যে ঘোষণায় চমকে যান খোদ মার্কিন কর্মকর্তারাও।

অন্যদিকে, শঙ্কায় পড়ে যায় মানবিজে মার্কিন সমর্থিত ওয়াইপিজি ও এসডিএফ যোদ্ধারা। কারণ তাদের ধারণা, মার্কিন সেনারা সেখান থেকে চলে গেলে অভিযান চালাবে আঙ্কারা।

তবে রোববারের ফোনালাপে এরদোয়ান গত সপ্তাহের ওই হামলা প্রসঙ্গে ট্রাম্পকে বলেন, তিনি (ট্রাম্প) সেনা প্রত্যাহারের যে ঘোষণা দিয়েছেন তা যাতে বাস্তবায়ন না হয় সেজন্যই ওই উস্কানিমূলক কাজ করা হয়েছে।

আইএসের কাছ থেকে ২০১৬ সালে মানবিজের নিয়ন্ত্রণ নেয় যুক্তরাষ্ট্র সমর্থিত ওই কুদি যোদ্ধাদের সংগঠন ওয়াইপিজি। তারাই এখন মানবিজ নিয়ন্ত্রণ করছে।

অন্যদিকে, আঙ্কারা মনে করে, ওয়াইপিজি একটি সন্ত্রাসী সংগঠন, যার সঙ্গে তুরস্কে নিষিদ্ধঘোষিত কুর্দিস্তান ওয়ার্কার্স পার্টির (পিকেকে) যোগসূত্র রয়েছে। পিকেকে-কে জাতীয় নিরাপত্তার জন্য হুমকি মনে করে আঙ্কারা।

তবে এরদোয়ান যে ট্রাম্পকে মানবিজের নিয়ন্ত্রণ নেওয়ার প্রস্তাব দিয়েছেন- এমন কথা হোয়াইট হাউজ স্বীকার করেনি। বরং বলা হয়েছে, দুই নেতা সিরিয়ার উত্তর-পূর্বের ওই শহরে আলোচনার মাধ্যমে শান্তি প্রতিষ্ঠার ব্যাপারে কথা বলেছেন।

হোয়াইট হাউজের মুখপাত্র সারা স্যান্ডার্স বলেছেন, ‘প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প সিরিয়ায় থাকা সকল সন্ত্রাসীদের দমনের ওপর গুরুত্বারোপ করেছেন।’

এর আগে মার্কিন প্রেসিডেন্ট তুরস্কের প্রতি সতর্কতা উচ্চারণ করে বলেন, আঙ্কারা যদি মানবিজে কুর্দিদের ওপর হামলা চালায় তাহলে অর্থনৈতিক অবরোধ আরোপ করা হতে পারে।

রোববারের আলোচনায় সিরিয়া-তুরস্কের ওই সীমান্তে (মানবিজ) নিরাপদ অঞ্চল (সেফ জোন) প্রতিষ্ঠার ব্যাপারেও দুই নেতার কথা হয় বলে তুর্কি প্রেসিডেন্টের পক্ষ থেকে দেওয়া বিবৃতিতে উল্লেখ করা হয়েছে।

গত সপ্তাহে ট্রাম্প ওই সেফ জোনের প্রস্তাব করেন। তবে এ ব্যাপারে বিস্তারিত কিছু বলেননি মার্কিন প্রেসিডেন্ট। বুধবার কুর্দিরাও সেফ জোন প্রতিষ্ঠার জন্য প্রস্তুত বলে জানায়।