Lead Banner

সুনীল গঙ্গোপাধ্যায়ের জন্মদিন আজ

8

শিল্প ও সাহিত্য ডেস্ক : বাংলা সাহিত্যের গত ৫০ বছরের ইতিহাস লিখতে বসলে পদ্য থেকে গদ্য— এই মানুষটিকে এড়িয়ে যাওয়া যাবে না কোনও মতেই। ‘সেই সময়’ থেকে ‘প্রথম আলো’, ‘একা এবং কয়েকজন’ থেকে ‘রাত্রির রাঁদেভু’— এক দীর্ঘ যাত্রাপথে কত যে রঙে উদ্ভাসিত হয়েছেন তিনি, তা যত আবিষ্কার করে নতুন পাঠক, ততই তার সামনে উন্মোচিত হয় ভুবনডাঙার খোলা মাঠ, ফুসফুস ভরা আনন্দ।

কথা সাহিত্যিক,কবি, ছোটগল্পকার, সাংবাদিক, সম্পাদক,বাংলাদেশের মুক্তিযুদ্ধের কলমবন্ধু, বহুমুখী প্রতিভাবান  সুনীল গঙ্গোপাধ্যায়ের ৮৫তম জন্মদিন আজ (৭ সেপ্টেম্বর)। ১৯৩৪ সালের ৭ সেপ্টেম্বর ফরিদপুরে সুনীল গঙ্গোপাধ্যায়ের জন্ম। সুনীল গঙ্গোপাধ্যায়ের জন্ম ফরিদপুর জেলায়। জন্ম বাংলাদেশে হলেও তিনি বড় হয়েছেন ভারতের পশ্চিমবঙ্গে। পড়াশুনা করেছেন কলকাতা বিশ্ববিদ্যালয়ে। বাবা ছিলেন স্কুল শিক্ষক।

আজ সন্ধে ৬টায় তার ৮৫তম জন্মদিন উপলক্ষে নতুন ‘কৃত্তিবাস’ ও ‘কৃত্তিবাস মাসিক’ পত্রিকার উদ্যোগে কলকাতার শিশির মঞ্চে বিশেষ পুরস্কার প্রদান অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়েছে।

এই অবসরেই হাতে এল সুদীপ পাঠকের ব্যতিক্রমী সুনীল-স্মরণ। ‘সুনীল সাক্ষী’ নামের এক পুস্তিকায় সুদীপ রেখায় ধরতে চেয়েছেন তাঁর প্রিয় কবি সুনীলের বেশ কিছু বিখ্যাত কবিতাকে। পুস্তিকার ভূমিকা লিখেছেন কবিপত্নী স্বাতী গঙ্গোপাধ্যায়, নান্দীমুখ সঞ্জয মুখোপাধ্যায়। সেই সঙ্গে সুদীপ জানিয়েছেন তাঁর ‘সুনীল যাপন’-এর ইতিবৃত্ত।

সুনীল গঙ্গোপাধ্যায়ের কবিতা

একটি কথা

একটি কথা বাকি রইলো, থেকেই যাবে
মন ভোলালো ছদ্মবেশী মায়া
আর একটু দূর গেলেই ছিল স্বর্গ নদী
দূরের মধ্যে দূরত্ব বোধ কে সরাবে।
ফিরে আসার আগেই পেল খুব পিপাশা
বালির নিচে বালিই ছিল, আর কিছুই না
রৌদ্র যেন হিংসা, খায় সমস্তটা ছায়া
রাত্রি যেমন কাঁটা, জানে শব্দভেদী ভাষা।
বালির নিচে বালিই ছিল, আর কিছু না
একটি কথা বাকি রইল, থেকেই যাবে।

১৯৭২ ও ১৯৮৯ সালে আনন্দ পুরস্কার এবং ১৯৮৫ সালে সাহিত্য অকাদেমি পুরস্কারে ভূষিত হন তিনি। বাংলা সাহিত্যের কালপুরুষ মৃত্যুবরণ করেন ২৩ অক্টোবর ২০১২ সালে।

 

বীকনবাংলা/শমরিতা