Lead Banner

হেঁচকি দূর করার ঘরোয়া উপায়

10

লাইফস্টাইল ডেস্ক : ‘হেঁচকি’- শব্দটা আমাদের কাছে খুব পরিচিত ৷ মানুষের বেঁচে থাকার কোন এক মুহূর্তে প্রত্যেকেই হেঁচকির সম্মুখীন হয়ে থাকে ৷ এটা খুবই স্বাভাবিক একটি বিষয় ৷ কিন্তু হেঁচকি যদি বারবার হতে থাকে, তখন তা খুবই বিরক্তিকর ব্যাপার হয়ে দাঁড়ায় ৷

হেঁচকি ওঠা নিয়ে আমাদের প্রায়ই মানুষের সামনে বিড়ম্বনায় পড়তে হয়। চিকিৎসকদের মতে, হেঁচকির কোনও বিশেষ একটি কারণ নেই। নানা কারণেই হেঁচকি উঠতে পারে।

খেতে বসার পর খাবার পেটে যাওয়ার পরেই বা দ্রুত খেতে চেষ্টা করলে, গরম ও মশলাদার খাবার খেলে কিংবা গরম খাবারের সঙ্গে ঠান্ডা জল খেলে হেঁচকি ওঠার প্রবণতা বাড়ে। অনেক সময় দীর্ঘ ক্ষণ হাসলে বা কাঁদলেও হেঁচকি ওঠে। আবার বড় ধরনের কোনও অসুখের কারণেও হেঁচকির প্রবণতা থাকে।

বড় কোনও অসুখ ছাড়া সাধারণ কারণে হেঁচকি উঠলে জল খেলে তা কমে, লিভার ঠান্ডা হয়, এমন একটা ধারণা আমাদের আছেই। তবে তা থেকে নিষ্কৃতি পেতে আরও কিছু ঘরোয়া কিছু উপায় অবলম্বন করাই যায়। দেখে নিন সে সব কী কী।

১।হঠাৎ হেঁচকি ওঠা শুরু করলে সঙ্গে সঙ্গে কয়েক চামচ মাখন বা চিনি খান। মাখনের ফ্যাট ও চিনির শর্করা হেঁচকি কমাতে কার্যকর।

২।ঘাড়ে গরম তেল দিয়ে ভাল করে মালিশ করুন, হেঁচকি সহজে কমবে।

৩।লম্বা শ্বাস নিয়ে ভিতরে অনেক ক্ষণ তা ধরে রেখে দিন। সঙ্গে অবশ্যই নাক বন্ধ রাখুন। শ্বাস বার করতে না পারার কষ্ট অসহ্য হয়ে উঠলে ধীরে ধীরে শ্বাস ছাড়ুন। বার কয়েক এই পদ্ধতি অবলম্বন করলে সহজেই কমবে হেঁচকি।

৪।দুই কানে দুই আঙ্গুল ঢুকিয়ে কিছু ক্ষণ থাকুন। শ্বাস চেপে রাখুন সেইটুকু সময়। দেখবেন, হেঁচকি নিমেষেই বন্ধ হয়ে গিয়েছে।

৫।খাটে বসে লম্বা শ্বাস নিন, এ বার দুই হাঁটুকে মুড়ে বুকের কাছে আনুন। পেটের তলদেশে চাপ পড়ে হেঁচকি বন্ধ হয় এই উপায়ে।

এই বিষয়গুলোর মধ্যে কিছু সহজ উপায়,আবার কিছু অদ্ভুত উপায়ও রয়েছে ৷ তবে আপনার জন্য যে পদ্ধতিটা সুবিধা হবে,আপনি সেই পদ্ধতিটা বাড়িতে বসে চেষ্টা করে দেখতে পারেন ৷ তবে হেঁচকি যদি বেশিদিন ধরে আপনার সঙ্গী হয়ে থাকে, তবে অবশ্যই আপনার যে কোন মেডিকেল চেক-আপে যাওয়া উচিত ৷ তবে হেঁচকি একটি খুবই সাধারণ ব্যাপার,যা মেডিকেল সায়েন্স খুব একটা পাত্তা দেয় না৷ এটি আপনি যে কোন ঘরোয়া পদ্ধতির মাধ্যমেই দূর করতে পারেন ৷

 

বীকনবাংলা/শমরিতা